Tech Gyan

ভিপিএন কি? ভিপিএন ব্যবহারের সুবিধা।

ইন্টারনেট ব্যবহার করেন কিন্তু ভিপিএন শব্দটি কেউ শুনেন নি এমন সংখ্যক মানুষ খুবই কম। এর মধ্যে অনেকেই জানে না ভিপিএন কি? ভিপিএন কি কারণে ব্যবহার করতে হয়, কিভাবে ভিপিএন কাজ করে তাদের উদ্দেশ্য এই আর্টিকেল। টেক মাস্টার বিডি আপনাদের কে সহজ ভাষা VPN কি? কিভাবে এটি কাজ করে ইত্যাদি বিষয় গুলো বুঝানোর চেষ্টা করবে।

ভিপিএন কি?(What is VPN)

ভিপিএন এর পূর্ণরুপ হলো ভার্চুয়াল প্রাইভেট নেটওয়ার্ক (VPN = Virtual Private Network) । ভিপিএন ইন্টারনেট জগতে তথ্য আদান-প্রদান করার ক্ষেত্রে আমাদের জন্য একটি সিকিউর পথ তৈরী করে দেয় যা দ্বারা আমরা ইন্টারনেটে অনেকটা নিরাপদ ভাবে ব্রাউজিং বা যেকোন কিছু করতে পারি। আমরা ইন্টারনেটে কি দেখছি, কি সার্চ করছি ইত্যাদি জিনিস গুলো নজরদারী করা সম্ভব যেটি চাইলে আমাদের ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডার দেখতে পারে। এছাড়াও আরো অনেক ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান ইন্টারনেটের মাধ্যমে আমাদের বিভিন্ন তথ্য গুলো দেখতে পারে সেই গুলোর গোপনীয়তা রক্ষার্থে ভিপিএন তৈরী।

বর্তমান সময়ে ভিপিএন বহুল জনপ্রিয় এবং দিন দিন এর ব্যবহার বাড়ছে। কিন্তু বর্তমান সময়ে আমরা ভিপিএন যেসব কাজে ব্যবহার করে থাকি সেইসব কাজের জন্য জন্ম হয় নি। ভিপিএন এর উৎপত্তির উদ্দেশ্য ছিল পাবলিক নেটওয়ার্ককে সিকিউর করে নিজেকে গোপন রেখে তথ্য আদান-প্রদান করা।

ভিপিএন কিভাবে কাজ করে

Image by Stefan Coders from Pixabay

VPN কিভাবে কাজে করে এবং আমাদের সুরক্ষতি রাখে। এই বিষয়টি বুঝানোর জন্য একটা সহজ উদাহরণ দেয় আমরা যখন কোন পাবলিক প্লেস বা পথ দিয়ে যাতাযায় করে থাকি সেই রাস্তা দিয়ে যাওয়ার সময় আমরা কি করছে না করছি সেই গুলো অন্য জন দেখতে পারে। এমন কি ঐ রাস্তা দিয়ে যাওয়ার সময় কোন ডাকাত বা খারাপ লোক আপনাকে লুট করতে পারে আপনার ক্ষতি সাধন করতে পারে। এখন কল্পনা করুন আপনার যদি একটা গোপন রাস্তা থাকতো যেখান দিয়ে যাতায়াত করলে কেউ দেখতে পারবে না আরামছে চলে যেতে পারবেন! তখন ভালো হতো না?

অথবা এমন কোন রাস্তা যেখানে আইনের লোকজন সারাক্ষণ টহল দেয় একদম নিরাপদ কোন চুরি ডাকাতির সুযোগ নেয় তাহলে বেশ আপনি আমার যাতায়াত নিরভয়ে করতে পারতেন। ঠিক এই রকম একটা প্রাইভেট রাস্তা ইন্টারনেটের ক্ষেত্রে আপনার জন্য ভিপিএন টেকনোলজি করে দেয় যার মাধ্যমে আপনার তথ্য গুলো আপনার পরিচয় গোপন থাকে। আমরা যদি VPN শব্দটা কে ভেঙ্গে ভেঙ্গে দেখি তাহলে অনেকটা বুঝতে পারবো। ভার্চুয়াল প্রাইভেট নেটওয়ার্ক মানে একটি কাল্পনিক ব্যক্তিগত বা গোপনীয় নেটওয়ার্ক যার মাধ্যমে আপনি ইন্টারনেটে বিচরণ করে বেড়াবেন।

ইন্টারনেট মানেই নেটওয়ার্ক আমরা নেটওয়ার্কের মাধ্যমে ইন্টারনেটের সাথে যুক্ত। আমরা জানি, একটি কম্পিউটার আরেকটি কম্পিউটারের সাথে যুক্ত হয়ে তথ্য আদান-প্রদান করলে সেটি নেটওয়ার্ক আর এই রকম হাজার হাজার কম্পিউটার ডিভাইস ইত্যাদির সাথে যুক্ত হয়ে তৈরী হয় এই ইন্টারনেট। তো ইন্টারনেটে আমাদের অর্থাৎ আমাদের ডিভাইসের একটা পরিচয় রয়েছে সেটা হলো আইপি অ্যাড্রেস(IP Address = Internet Protocol Address) । আমাদের আইপি দ্বারা অনেক তথ্য জানা সম্ভব এই আইপি অনেক গুরুত্বপূর্ণ জিনিস ইন্টারনেট জগতে।

এই আইপি দ্বারা নির্দিষ্ট ব্যক্তি বা ডিভাইস কে নির্দেশ করে। তো আমরা যখন কোন ভিপিএন সফটওয়্যার ব্যবহার করে কোন ভিপিএন সার্ভারের সাথে কানেক্ট হই তখন মূলত আমাদের আইপি এড্রেস কে হাইড করে ভিপিএন সার্ভারের থেকে দেওয়া আইপি দেখায়। ফলে যে সার্ভারের সাথে কানেক্ট হয় সেখানকার একটা আইপি এড্রেসের সাথে যুক্ত হয়ে যায় আমরা। এর ফলে যখন আমরা কোন ওয়েবসাইট ব্রাউজ করি বা ইন্টারনেট ব্রাউজিং করি তখন আসল আইপি গোপন থাকে এবং সেই সাথে আমরা কোন স্থানে আছি সেই জিনিস গুলোও গোপন থাকে।

ভিপিএন যে শুধু আমাদের আইপি গোপন রাখে তা না এছাড়াও ইন্টারেনেটে যেসব তথ্য আদান প্রদান করি সেইগুলো ইনক্রিপ্ট হয়ে থাকে। ফলে আমাদের ডিভাইস ও ইন্টারনেটের মধ্যে একটা সিকিউর কানেকশন বা নেটওয়ার্ক তৈরী হয় যার মধ্যে অন্য কোন ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান হস্তক্ষেপ করতে পারে না। সহজ ভাষায় আপনাদের কে বুঝানোর চেষ্টা করলাম ভিপিএন কিভাবে আমাদের কে সুরক্ষিত রাখে ও কিভাবে কাজ করে।

ভিপিএন ব্যবহারের সুবিধা ও কি কাজে ব্যবহার করতে পারি?

ভিপিএন ব্যবহার করলে আমরা কি কি সুবিধা পেতে পারি, কি কাজে ব্যবহার করতে ভিপিএন সেই সম্পর্কে সংক্ষেপে কিছু জিনিস তুলে ধরলাম।

  • ইন্টারনেট জগতে নিজেকে সুরক্ষিত রাখার জন্য ভিপিএন ব্যবহার করতে পারেন।
  • নিজের আইপি অ্যাড্রেস গোপন করে ইন্টারনেট ব্রাউজিং করতে ভিপিএন ব্যবহার করতে পারেন।
  • যেসব অ্যাপ বা ওয়েবসাইট ব্লক আছে আমাদের দেশে সেই সব ভিজিট করতে ভিপিএন ব্যবহার করতে পারেন।
  • বিভিন্ন পাবলিক ওয়াইফাই বা নেটওয়ার্কে নিরাপদ ভাবে ইন্টারনেট ব্রাউজিংয়ের জন্য ভিপিএন ব্যবহার করতে পারেন। যেকোন পাবলিক নেটওয়ার্কে বা ওয়াইফাই ইন্টারনেট ব্রাউজিং করলে তথ্য চুরির আশংকা থেকে যায় মানে হ্যাকারের হাতে যাওয়ার সম্ভবনা থাকে। তাই যখন কোন পাবলিক ওয়াইফাই ব্যবহার করবেন তখন ভিপিএন ব্যবহার করবেন ফলে আপনার ডাটা গুলো সুরক্ষিত থাকবে।
  • অনেক সময় বিভিন্ন কারণে গেমস ব্যান করা হয়ে থাকে সেই গুলো ব্যান থাকা অবস্থায় খেলার জন্য ভিপিএন ব্যবহার করা যায়।
  • অনেক গেম গুলো আছে যেগুলো প্রথমে ভালো ভালো দেশে আসে তারপর গোবাল ভাবে রিলিজ করে কিন্তু যারা গেম প্রেমী ঐ অবস্থায় খেলতে চান তারা ঐ দেশের ভিপিএন সার্ভার কানেক্ট করে গেমসটি খেলতে পারে।
  • অনেক সময় কিছু পেইড ভিপিএন সফটওয়্যার ব্যবহার করার ফলে ইন্টারনেট স্পিড বৃদ্ধি পাই।
  • নিজের লোকেশন পরিবর্তন করার ক্ষেত্রে।
  • নিজের প্রাইভেসি ধরে রাখতে।

এছাড়াও আরো অন্যান্য কারণ বা কাজে ভিপিএন ব্যবহার করতে পারেন। বিভিন্ন লোকের উপর ভিত্তি করে ভিপিএন এর ব্যবহার পরিবর্তন হয়ে থাকে। কেউ খারাপ কাজে ভিপিএন ব্যবহার করে আবার কেউ নিজেকে অনলাইনে সুরক্ষিত রাখতে ভিপিএন ব্যবহার করে।

ভিপিএন ব্যবহারের অসুবিধা

প্রত্যেক জিনিসের ব্যবহারের সুবিধা ও অসুবিধা দুটি রয়েছে। ভিপিএন আমাদের প্রাইভেসিটা কে ইন্টারনেটে সুরক্ষিত করলেও কিছু জিনিস তাদের আয়ের উৎসের জন্য ব্যবহার করে থাকে। এটি ব্যবহারের তেমন অসুবিধা নেয় দুটি কারণ শুধু উল্লেখ করলাম।

  • ভিপিএন ব্যবহার করলে যেহেতু আমাদের লোকেশন চেঞ্জ হয়ে যায় এই অবস্থায় যদি আমরা গুগল বা অন্যান্য অ্যাকাউন্টে লগিন করি তাহলে গুগল বা অন্যান্য অ্যাকাউন্টের সন্দেহের চোখে দেখতে পারে। এর ফলে বিভিন্ন ভেরিফিকেশন দিতে পারে। এই জন্য যদি কোন জিনিসে লগিন করতে হয় তাহলে আগেই করে রাখবেন তারপর ভিপিএন কানেক্ট করে ব্যবহার করতে পারেন।
  • যেসব ফ্রি ভিপিএন রয়েছে তারা ইনকামের জন্য আমাদের কিছু ডাটা বিক্রি করে এবং বিজ্ঞাপন দেখানোর মাধ্যমে আয় করে। যদিও পেইড ভিপিএন সার্ভিস মানে যেগুলো কিনে ব্যবহার করতে হয় সেইগুলো বিজ্ঞাপন দেখায় না ও সম্ভবত পার্সোনাল ডাটাও ব্যবহার করে না।

কোন ভিপিএন ভালো?

বাজারে অনেক ভিপিএন রয়েছে এর মধ্যে ভালো ভিপিএন গুলো কোনটি? অনলাইনে অনেক ভিপিএন সফটওয়্যার রয়েছে যেগুলো কোনটা একদম ফ্রি আবার কোনটা একদমই পেইড আর নয় কিছু লিমিটেশন দিয়ে ফ্রি করছে প্রিমিয়াম ফিচার নিতে হলে কিনতে হবে। আমাদের দেশের ক্ষেত্রে অনেক মানুষের পেইড ভিপিএন কেনার  আগ্রহ ও টাকা দুটাই কম। যারা ভিপিএন কে সাধারণ কাজ গুলোর জন্য ব্যবহার করতে চাই তারা ফ্রি ভিপিএন গুলো ব্যবহার করতে পারেন। ফ্রি ও জনপ্রিয় কিছু ভিপিএন কোম্পানির নাম নিচে উল্লেখ করলাম।

বেস্ট ফ্রি ভিপিএন

উপরে কয়েকটি ফ্রি ভিপিএন এর নাম উল্লেখ করলাম যেগুলো ফ্রি এবং পেইড দুটাই। কম্পিউটারের জন্য যেসকল ভিপিএন রয়েছে প্রায়ই সব গুলো ফ্রি ও পেইড ভার্সন/ফিচার রয়েছে। একদম ফ্রি আমার জানা মতো ভালো ভিপিএন নেয়। তো এই ভিপিএন সার্ভিস গুলো ফ্রিতে সুবিধা দেয় কিছু লিমিট রেখে।

প্রিমিয়াম ভিপিএন সার্ভিস

নিচে কিছু প্রিমিয়াম ভিপিএন অর্থাৎ যে ভিপিএন গুলো কিনে ব্যবহার করতে হয় সেইগুলো কয়েকটার নাম তুলে ধরা হলোঃ

  • Express VPN
  • Nord VPN
  • IP Valish
  • Surfshark
  • CyberGhost ইত্যাদি।

আশা করি, ভিপিএন কি? কি কাজে ভিপিএন ব্যবহার করতে পারেন বিষয় সম্পর্কে আপনাদের স্পষ্ট ধারণা দিতে পেরেছে টেক মাস্টার বিডি। আর্টিকেলটি ভালো লাগলে বন্ধুদের মাঝে শেয়ার করতে ভুলবেন না ধন্যবাদ।

আরো পড়ুনঃ

Techmaster BD

প্রযুক্তি বিষয়ক বিভিন্ন তথ্য ও টিপস এন্ড ট্রিক জানতে ও জানাতে পছন্দ করি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
error: Content is protected !!